শনিবার, ১৫ Jun ২০২৪, ০৭:০৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
চট্টগ্রাম ১০দফা দাবিতে চতুর্থ শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতির স্মারকলিপি প্রদান সোনাইমুড়ী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা দখল নিতে হামলা, নারীসহ ৫ জন আহত হারানো বিজ্ঞপ্তি চমেক হাসপাতালে জরুরী বিভাগে টিকিটে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগ দরবারে মূসাবীয়ার ৭৭ তম পবিত্র খোশরোজ শরীফ অনুষ্ঠিত আনোয়ারায় মাজার মসজিদের  জমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ইউসেপ স্কুলে নবীন বরন ও এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের জয় ডাক্তার সেজে আইসিইউতে ল্যাব টেকনিশিয়ান বাকলিয়া থানার বিশেষ অভিযানে মোটরসাইকেলসহ চোর চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

কিছু রাজনৈতিক দলের বিরোধিতা সত্ত্বেও সারাদেশে নির্বাচনের উৎসবমুখর আমেজ

 

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি:

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি বলেছেন, এদেশের মানুষ সব সময় নির্বাচনকে উৎসবমুখর হিসেবেই দেখে। এবারও কিছু রাজনৈতিক দলের বিরোধিতা সত্ত্বেও ইতোমধ্যে সারাদেশে সাধারণ মানুষের মধ্যে নির্বাচনের উৎসবমুখর আমেজ তৈরি হয়েছে।

২৮ নভেম্বর, মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় তার নিজ বাসভবনে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থীর বিষয়ে দলীয় সিদ্ধান্তে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে হানিফ বলেন, এতে কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না। বরং উৎসবের আমেজ আরো বৃদ্ধি পাবে।
কৌশলগত কারণেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

নির্বাচনে যাতে প্রত্যেকটা এলাকায় একাধিক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিতে পারে এবং জনগণ তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট প্রয়োগের মাধ্যমে নির্বাচিত করতে পারে সেই সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। এতে করে উৎসবের মাত্রা আরো বৃদ্ধি পাবে। তাতে বিশৃঙ্খলা হবার কোনো সুযোগ নেই।

১৪ দলীয় জোট প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, ১৪ দলীয় জোট আছে থাকবে। আগামী ১৭ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময়। এই সময়ের মধ্যে ১৪ দলীয় জোটের বিষয়ে কার্যকরী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এ নিয়ে হতাশ বা বিভ্রান্তির কিছু নেই। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ১৪ দলীয় জোটের সাথে আছে, সেই ১৪ দলীয় জোটের ভিত্তিতেই আওয়ামী লীগ নির্বাচনে অংশ নিবে। ১৪ দলীয় জোটে যারা আছেন তাদেরকে যথাযথ মূল্যায়ন করা হবে।

বিএনপি প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, যেহেতু তারা নির্বাচনী মাঠে নেই। রাজনৈতিক দল হিসেবেও তারা দেশের মানুষের কাছে বিবেচিত হচ্ছে না তাদের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডও রাজনৈতিক নয়, তারা এখন সন্ত্রাসী রাজনীতির মধ্যে চলে গেছে। এসব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সাথে যারা জড়িত তাদের কথাবার্তা আমলে নেয়ার যৌক্তিকতা নেই। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ স্বাধীন তারা অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে বদ্ধপরিকর।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত