সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ০৫:২৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
চট্টগ্রাম ১০দফা দাবিতে চতুর্থ শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতির স্মারকলিপি প্রদান সোনাইমুড়ী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা দখল নিতে হামলা, নারীসহ ৫ জন আহত হারানো বিজ্ঞপ্তি চমেক হাসপাতালে জরুরী বিভাগে টিকিটে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগ দরবারে মূসাবীয়ার ৭৭ তম পবিত্র খোশরোজ শরীফ অনুষ্ঠিত আনোয়ারায় মাজার মসজিদের  জমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ইউসেপ স্কুলে নবীন বরন ও এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের জয় ডাক্তার সেজে আইসিইউতে ল্যাব টেকনিশিয়ান বাকলিয়া থানার বিশেষ অভিযানে মোটরসাইকেলসহ চোর চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে সচিব হতে চারজনের দৌঁড়ঝাপ

সৈয়দ মো: শাহজাহান,বিশেষ প্রতিনিধি:

চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের সচিব অধ্যাপক আবদুল আলীম তিন বছর দায়িত্ব পালন শেষে অবসরে গেছেন। নতুন সচিব না আসা পর্যন্ত এ পদের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন বোর্ড চেয়ারম্যান অধ্যাপক মুস্তফা কামরুল আখতার। এর মধ্যেই সচিব পদে ‘অধিষ্ঠিত’ হতে দৌঁড়ঝাপ শুরু হয়েছে। শিক্ষাবোর্ডের গুরুত্বপূর্ণ এ পদটি পেতে নাম শোনা যাচ্ছে চারজনের। যাদের কেউ কেউ ইতিমধ্যেই তদবির করছেন রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক মহলে।

সচিব পদে যারা দৌড়ঝাঁপ করছেন, তাদের মধ্যে একজন শিক্ষাবোর্ডের কর্মকর্তা। বাকি দুইজন চট্টগ্রাম কলেজের শিক্ষক এবং অন্যজন চন্দনাইশের একটি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ। চারজনের নাম শোনা গেলে শেষপর্যন্ত কে হচ্ছেন শিক্ষাবোর্ডের সচিব তা নিয়ে কেউই মুখ খুলতে আগ্রহী নয়।

সচিব পদের বিপরীতে যারা দৌড়ঝাঁপ করছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন — শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক মো. জাহেদুল হক, চন্দনাইশের গাছবাড়ীয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক রনজিৎ কুমার দত্ত, চট্টগ্রাম সরকারি কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক রেজাউল করিম এবং একই কলেজের ইংরেজি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত বিভাগীয় প্রধান এ এম এম মুজিবুর রহমান। এর বাইরে বর্তমান পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ন চন্দ্র নাথওশিক্ষাবোর্ডের সচিব পদের জন্য কয়েক দফা চেষ্টা করেছিলেন বলে জোর গুঞ্জন ছিল।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সচিব পদে দৌড়ঝাঁপে জোর চেষ্টা তদবির চালাচ্ছেন চট্টগ্রাম সরকারি কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক রেজাউল করিম এবং ইংরেজি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত বিভাগীয় প্রধান এ এম এম মুজিবুর রহমান। তবে মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন সচিব পদে বোর্ডের কর্মকর্তা কলেজ পরিদর্শক মো. জাহেদুল হকের নামই বেশি আলোচনায় রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষাবোর্ডের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, ‘স্বাধীনতা বিসিএস শিক্ষা সংসদের নাম ভাঙিয়ে কেউ কেউ এ পদের জন্য জোর চেষ্টা তদবির চালাচ্ছেন। তবে তা কখনোই ভালো হবে না। কেননা তারা নিজেদের মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষীয় দাবি করলেও তারা ভালো মানুষ নন। তারা শিক্ষাবোর্ডে এলে বোর্ডের শৃঙ্খলা নষ্ট হয়ে যাবে এবং বিতর্ক বাড়বে। একইসঙ্গে বোর্ডের কর্মকাণ্ডে অরাজকতাও তৈরি হবে।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মুস্তফা কামরুল আখতার বলেন, ‘মন্ত্রণালয় যখনই প্রয়োজন মনে করবে তখনই নিয়োগ দেবেন। সবকিছুই মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত। তাছাড়া এ পদের জন্য মন্ত্রণালয় যাকে উপযুক্ত ও যোগ্য মনে করবেন তাকেই দেবেন।’

প্রসঙ্গত, নয়দিন আগে গত ২৫ অক্টোবর চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের সচিব অধ্যাপক আবদুল আলীম অবসরোত্তর (পিআরএল) ছুটিতে যান। তারপর থেকে বোর্ডের এ শীর্ষ পদটি শূন্য রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত