সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ০২:৪৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
চট্টগ্রাম ১০দফা দাবিতে চতুর্থ শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতির স্মারকলিপি প্রদান সোনাইমুড়ী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা দখল নিতে হামলা, নারীসহ ৫ জন আহত হারানো বিজ্ঞপ্তি চমেক হাসপাতালে জরুরী বিভাগে টিকিটে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগ দরবারে মূসাবীয়ার ৭৭ তম পবিত্র খোশরোজ শরীফ অনুষ্ঠিত আনোয়ারায় মাজার মসজিদের  জমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ইউসেপ স্কুলে নবীন বরন ও এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের জয় ডাক্তার সেজে আইসিইউতে ল্যাব টেকনিশিয়ান বাকলিয়া থানার বিশেষ অভিযানে মোটরসাইকেলসহ চোর চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

দুঃসময়ের কথা কেউ ভুলে যাবেন না: প্রধানমন্ত্রী

ওই দুঃসময়ের কথা কেউ ভুলে যাবেন না: প্রধানমন্ত্রী

২০১৩-১৫ সালে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময়কার অগ্নিদগ্ধ হয়ে আহত-নিহতদের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশবাসীকে এটুকুই বলবো ওই দুঃসময়ের কথা যেন কেউ ভুলে না যায়।’

রোববার রাজধানীর জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘অগ্নি সন্ত্রাসের আর্তনাদ : বিএনপি-জামাতের অগ্নি সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের খণ্ডচিত্র’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে ২০১৩-১৫ সালে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময় অগ্নিদগ্ধ হয়ে নিহতদের স্বজন এবং আহতদের অনেকে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিকগণও ছিলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যারা আগুনে পুড়েছে কী অবস্থা তাদের? এক এক জনের জীবনে কত স্বপ্ন ছিল, কত আকাঙ্ক্ষা ছিল, সেই আকাঙ্ক্ষা গুলো একে একে সব পুড়ে শেষ হয়ে গেছে, একে একে পুড়ে সব ধ্বংস। আমি শুধু দেশবাসীকে এটুকুই বলবো ওই দুঃসময়ের কথা যেন কেউ ভুলে না যায়।’

ভবিষ্যতে কেউ এ ধরনের ঘটনা ঘটালে সহ্য করা হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার খালি একটাই আহ্বান থাকবে দেশবাসীর কাছে। কেউ রাজনীতি করতে চায় সুষ্ঠু রাজনীতি করুক, আমাদের তাতে আপত্তি নেই। কিন্তু আমার এই সাধারণ মানুষের গায়ে কেউ হাত দিলে তাদের রক্ষা নেই। এটা সহ্য করা যায় না, কোন মানুষ সহ্য করতে পারে না।’

এ ধরনের ঘটনা যাতে কেউ ঘটাতে না পারে সে বিষয়ে সবাইকে সর্তক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি দেশবাসীকে বলব এ ব্যাপারে সকলকে সজাগ থাকতে। এ ধরনের ঘটনা ভবিষ্যতে আর কেউ যেন ঘটাতে না পারে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘দল মত নির্বিশেষে যেই হোক এদেশের প্রতিটি মানুষের স্বাধীন ভাবে বাঁচার অধিকার আছে। প্রতিটি মানুষের স্বাধীনভাবে নিজের জীবন জীবিকা নির্বাহের অধিকার আছে। প্রতিটি মানুষের সুন্দরভাবে বাঁচার অধিকার আছে। সেই অধিকার সংরক্ষণ করাই আমাদের দায়িত্ব, আমরা সেটাই চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা চরম মানবাধিকার লঙ্ঘন। এর বিচার হবেই, বিচারটা বোধহয় আল্লাহর তরফ থেকেই হবে। প্রত্যেক মামলায় বিচার চলছে না কিন্তু যারা এ ধরনের অগ্নি সন্ত্রাসের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে মামলা আছে, বিচার হচ্ছে অনেকে শাস্তি পাচ্ছে, ভবিষ্যতেও পাবে।’

তিনি বলেন, ‘মানুষ কীভাবে মানুষের ক্ষতি করতে পারে? এটাই নাকি তাদের আন্দোলন। এই আন্দোলন তো আমরা কখনো দেখিনি। আমরা তো কখনো স্বপ্নেও ভাবিনি পেট্রোল বোমা দিয়ে অথবা অগ্নিসংযোগ করে সাধারণ মানুষকে হত্যা করে আন্দোলন করা হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ২০১৩ সালেই প্রায় তিন হাজার ৬০০ জনকে পেট্রোল বোমা মেরে তারা আহত করেছে, ২০১৪-২০১৫ তে করেছে।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘এই আন্দোলন কী রকম আন্দোলন সেটা আমি জানি না। মানুষের জন্য আন্দোলন করতে হলে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে মানুষকে নিয়েই তো আন্দোলন করবে। আর তারা আক্রমণ চালিয়েছে, হত্যা, পাশবিক অত্যাচার ও বাড়ি দখল করেছে।

অনুষ্ঠানে বিগত সময়ে বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময়কার অগ্নিদগ্ধ হয়ে আহত-নিহত এবং আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত যানবাহনসহ বিভিন্ন ঘটনার ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী নিহতদের স্বজন এবং আহতদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। তাদের খোঁজ খবর নেন।

এ সময় বিএনপি জামায়াতের আন্দোলনের সময় নিহতদের স্বজন এবং অগ্নিদগ্ধে আহতদের বেশ কয়েকজন তাদের সেই কষ্টের স্মৃতিচারণ করেন। সেই সব হামলার জন্য বিএনপিকে দায়ী করে তাদের বিচার দাবি করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত