সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ০৪:১৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
চট্টগ্রাম ১০দফা দাবিতে চতুর্থ শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতির স্মারকলিপি প্রদান সোনাইমুড়ী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা দখল নিতে হামলা, নারীসহ ৫ জন আহত হারানো বিজ্ঞপ্তি চমেক হাসপাতালে জরুরী বিভাগে টিকিটে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগ দরবারে মূসাবীয়ার ৭৭ তম পবিত্র খোশরোজ শরীফ অনুষ্ঠিত আনোয়ারায় মাজার মসজিদের  জমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ইউসেপ স্কুলে নবীন বরন ও এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের জয় ডাক্তার সেজে আইসিইউতে ল্যাব টেকনিশিয়ান বাকলিয়া থানার বিশেষ অভিযানে মোটরসাইকেলসহ চোর চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

পাঁচ দফা দাবিতে চট্টগ্রাম বন্দরে লাইটার শ্রমিক ধর্মঘট, সারাদেশে নৌপথে পণ্য পরিবহন বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক –
চট্টগ্রাম বন্দর চেয়ারম্যানের অপসারণসহ চরপাড়ায় শ্রমিকদের মারধর ও লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে এবং পাঁচ দফা দাবিতে ১১ নভেম্বর শুক্রবার সকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট শুরু করেছেন লাইটারেজ শ্রমিকরা। এর ফলে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে নৌপথে সারাদেশে পণ্য পরিবহন বন্ধ রয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলে ‘সর্বস্তরের নৌযান শ্রমিকবৃন্দ’ ব্যানারে আয়োজিত এক সমাবেশ থেকে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন শ্রমিক নেতারা।

এদিকে লাইটারেজ শ্রমিক ধর্মঘটের কারণে বন্দরের বহিঃনোঙর থেকে সারাদেশে আমদানি পণ্য পরিবহন বন্ধ হয়ে গেছে। যে জাহাজগুলো পণ্য বোঝাই করে গন্তব্যে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল সেগুলো অলস বসে রয়েছে। আবার কর্ণফুলী নদীর বেসরকারি ঘাটগুলোতেও লাইটারেজ থেকে পণ্য খালাস বন্ধ করে দিয়েছেন নৌযান শ্রমিকরা। তবে জ্বালানি পরিবহন ধর্মঘটের বাইরে রাখা হয়।

পাঁচ দফা দাবি হচ্ছে- চট্টগ্রাম বন্দর চেয়ারম্যানের অপসারণ, পতেঙ্গা থানার ওসির অপসারণ, চরপাড়া ঘাটের ইজারা বাতিল, সাঙ্গু নদীর মুখ খনন এবং লোড ও খালি লাইটার জাহাজ বহিঃনোঙরে সার্ভে করা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ লাইটারেজ শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি নবী আলম বলেন, লোড আনলোডের অপেক্ষমাণ লাইটারেজগুলো আগে কর্ণফুলী নদীর উজানে রাখা হতো। পরে বন্দর কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় গত দেড় বছর ধরে সরিয়ে জাহাজগুলো পতেঙ্গা সৈকতের সামনে বহিঃনোঙরের কাছে রাখা হয়। তখন থেকে শ্রমিকদের ওঠানামার জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষ চরপাড়া ঘাট নির্মাণ করে দেয়। অতি সম্প্রতি চরপাড়া ঘাট ইজারা দেওয়া হয়। ঘাট ইজারা দেওয়ার পর থেকে অন্যায্য বেশি টাকা আদায় করা নিয়ে প্রতিবাদ করলে শ্রমিকদের উপর হামলা ও লাঞ্ছিত করা হচ্ছিল। এরপর শ্রমিকরা পতেঙ্গা সৈকত এলাকা সংলগ্ন চায়নিজ ঘাট ব্যবহার শুরু করে।

তিনি বলেন, শ্রমিক হামলার ঘটনায় আমরা পতেঙ্গা থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। পুলিশ প্রথমে অভিযোগই নিতে চায়নি। পরে নিলেও হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। উপরন্তু একদিন আগে বন্দর কর্তৃপক্ষ চায়নিজ ঘাটটি উচ্ছেদ করে দেয়। চায়নিজ ঘাট উচ্ছেদ করায় শ্রমিকরা বাজার করার জন্যও নামতে পারেনি। তাই শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত