বৃহস্পতিবার, ১৩ Jun ২০২৪, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
চট্টগ্রাম ১০দফা দাবিতে চতুর্থ শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতির স্মারকলিপি প্রদান সোনাইমুড়ী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা দখল নিতে হামলা, নারীসহ ৫ জন আহত হারানো বিজ্ঞপ্তি চমেক হাসপাতালে জরুরী বিভাগে টিকিটে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগ দরবারে মূসাবীয়ার ৭৭ তম পবিত্র খোশরোজ শরীফ অনুষ্ঠিত আনোয়ারায় মাজার মসজিদের  জমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ইউসেপ স্কুলে নবীন বরন ও এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের জয় ডাক্তার সেজে আইসিইউতে ল্যাব টেকনিশিয়ান বাকলিয়া থানার বিশেষ অভিযানে মোটরসাইকেলসহ চোর চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

সারাদেশে সাগরে আজ থেকে ৬৫ দিন মাছ ধরা বন্ধ

সাগরে আজ থেকে ৬৫ দিন মাছ ধরা বন্ধ

নিজস্ব প্রতিনিধি:
দেশের মৎস্য সম্পদের সুরক্ষা ও বংশবিস্তারে সাগরে মাছ ধরায় ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়েছে। গতকাল শুক্রবার মধ্যরাত থেকে শুরু হওয়া এই নিষেধাজ্ঞা চলবে ২৩ জুলাই পর্যন্ত। নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নে জেলে পল্লী ও মৎস অবতরণ কেন্দ্রে নৌ পুলিশ, কোস্ট গার্ড ও মৎস্য অধিদপ্তর যৌথভাবে সভা ও মাইকিং করে জেলেদের সচেতন করেছে। এরই মধ্যে উপকূলে ভিড়তে শুরু করেছে জেলেদের ট্রলার।
নিষেধাজ্ঞাকালে জেলেদের ৮৬ কেজি চাল সহায়তা দেয় সরকার। জেলেরা বলছেন, এই চাল নিয়ে একটা জেলে পরিবার ৬৫ দিন চলতে পারে না। আবার মা ইলিশ সংরক্ষণে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা থাকে। অনেকে বরাদ্দের পুরো চালও পান না।
এ ছাড়া অনেকে দীর্ঘদিন এই পেশায় থাকলেও জেলে হিসেবে নিবন্ধন না হওয়ায় বরাদ্দ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। তাই বরাদ্দের চাল সঠিকভাবে বণ্টন এবং এর সঙ্গে আর্থিক সহায়তার দাবি জানান জেলেরা।

ভোলার দৌলতখান উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের জেলে মো. নিজাম বলেন, তিনি ৩০ বছর ধরে এই পেশায় আছেন। কিন্তু এখনো জেলে কার্ড পাননি।
তাই নিষেধাজ্ঞার সময়ে কোনো সহায়তা পান না।

এদিকে বরগুনার মৎস্যজীবী নেতারা বলছেন, নিষেধাজ্ঞার সময়ে ভারতের জেমলরা দেশের জলসীমায় ঢুকে মাছ শিকার করেন। এটি ঠেকাতে না পারলে নিষেধাজ্ঞায়ও সুফল আসবে না।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ কুমার দেব বলছেন, প্রকৃত জেলেদের সহায়তার পাশাপাশি ভিনদেশি জেলেদের অনুপ্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে থাকবেন তাঁরা। জেলায় ২৭ হাজার ২৫০ জন জেলেকে এক হাজার ৫২৬ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।
প্রত্যেককে ৫৬ কেজি চাল দেওয়া হবে।

বাংলাদেশ মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, ‘ভারত ও মিয়ানমারের জেলেরা দেশের জলসীমায় প্রবেশ করে মাছ শিকার করে। তাই ওই অঞ্চলে নৌবাহিনীর টহল বৃদ্ধির দাবি জানাচ্ছি।’

সংবাদটি শেয়ার করুন :

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত