সোমবার, ২৪ Jun ২০২৪, ০৩:৫৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম
চট্টগ্রাম ১০দফা দাবিতে চতুর্থ শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতির স্মারকলিপি প্রদান সোনাইমুড়ী মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা দখল নিতে হামলা, নারীসহ ৫ জন আহত হারানো বিজ্ঞপ্তি চমেক হাসপাতালে জরুরী বিভাগে টিকিটে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগ দরবারে মূসাবীয়ার ৭৭ তম পবিত্র খোশরোজ শরীফ অনুষ্ঠিত আনোয়ারায় মাজার মসজিদের  জমি দখলের অপচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ইউসেপ স্কুলে নবীন বরন ও এস এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের জয় ডাক্তার সেজে আইসিইউতে ল্যাব টেকনিশিয়ান বাকলিয়া থানার বিশেষ অভিযানে মোটরসাইকেলসহ চোর চক্রের ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

জাহাজের কন্টেইনারে করে বিদেশে যাওযার চেষ্টা করা ট্রাক চালক লিটন মোল্যা
জাহাজের কন্টেইনারে করে বিদেশে যাওযার চেষ্টা করা ট্রাক চালক লিটন মোল্যাছবি সংগৃহীত
চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে পণ্যবাহী জাহাজে ও কনটেইনারে করে অবৈধভাবে বিদেশ যাওয়ার হার কমে এসেছিল। তবে গত বৃহস্পতিবার ঘটনা জানাজানির পর বিষয়টি আবারও সামনে এসেছে। বন্দরের আন্তর্জাতিকমানের নিরাপত্তাব্যবস্থা ভেদ করে কীভাবে অবৈধভাবে বিদেশে যাওয়ার ঘটনা বাড়ছে, তা নিয়ে জোরালো প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। এসব ঘটনা বন্দরের নিরাপত্তার ঘাটতি সামনে নিয়ে আসছে।

বন্দর ও শিপিং এজেন্টের তথ্য অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার ‘এমভি হাইয়ান ভিউ’ জাহাজে করে সিঙ্গাপুর থেকে লিটন মোল্যা এক ট্রাকচালককে ফেরত আনা হয়। গত ২৪ সেপ্টেম্বর লিটন মোল্যা বৈধ পাস নিয়ে বন্দরে ঢুকে এমভি হাইয়ান ভিউ জাহাজের পেছনের রেলিং বেয়ে উঠে যান। এ সময় একটি খালি কনটেইনারে লুকিয়ে থাকেন তিনি। জাহাজটি সিঙ্গাপুর যাওয়ার পথে পিপাসায় কাতর লিটন কনটেইনার থেকে বেরিয়ে এলে ধরা পড়েন।

এ ঘটনাসহ গত এক বছরে জাহাজে ও কনটেইনারে করে বিদেশে যাওয়ার তিনটি ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে দুজনকে জীবিত ফেরত আনা হলেও একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে গত বছরের ১০ অক্টোবর মালয়েশিয়ার পেনাং বন্দরে চট্টগ্রাম থেকে যাওয়া একটি কনটেইনারে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ বছরের ১৭ জানুয়ারি মালয়েশিয়ার কেলাং বন্দরে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া একটি জাহাজের খালি কনটেইনার থেকে রাতুল ইসলাম নামের এক কিশোরকে উদ্ধার করা হয়েছিল।

মামলার পর তদন্ত কমিটি
গত বৃহস্পতিবারের ঘটনায় বন্দরের নিরাপত্তা বিভাগের উপপরিদর্শক নাছির উদ্দিন আহমেদ বাদী হয়ে বন্দর থানায় মামলা করেন। এ ঘটনায় বন্দর কর্তৃপক্ষ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। বন্দরের নিরাপত্তা বিভাগের উপপরিচালক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার সৈয়দ সাজ্জাদুর রহমানকে আহ্বায়ক করে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম বন্দর সচিব ওমর ফারুক বলেন, ট্রাকচালক বৈধভাবে বন্দরে প্রবেশ করেছিলেন। এরপর কীভাবে জাহাজে ওঠে লুকিয়ে ছিলেন, সে ঘটনার দায়দায়িত্ব নিরূপণ এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা যাতে না হয়, সে জন্য সুপারিশ করতে এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত